সিলিং ফ্যানের সম্ভাব্য দোষত্রুটি ও তার প্রতিকার

সিলিং ফ্যান আমাদের দৈনন্দিন জীবনের একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ। এটি ছাড়া আমাদের গৃষ্মকালে একেবারেই যেন অসম্ভব। কিন্তু বিভিন্ন সময়ে এই যন্ত্রটিও ত্রুটিযুক্ত হয়। তখনই আমাদের দৌড়াতে হয় নিকটস্থ টেকনিশিয়ানের কাছে বা রিপিয়ারিং এর দোকানে। কিন্ত বেসিক কাজগুলো বা সমস্যাগুলো যদি আমরা নিজেরা চিহ্নিত করতে পারি তবে বাড়িতে বসেও ছোটখাটো সমস্যাগুলোর সমাধান করে ফেলা সম্ভব। ফলে একদিকে যেমন সময়ও বাঁচবে তেমনি কিছুটা খরচও বাঁচবে এবং সেইসাথে নিজের কর্মদক্ষতাও বাড়বে। আজকের এই আর্টিক্যালটিতে আমি সিলিং ফ্যানের এমন কিছু সম্ভাব দোষত্রুটি এবং প্রতিকার নিয়ে আপনাদের সাথে আলোচনা করবো। চলুন দেখে নেওয়া যাক-


সিলিং ফ্যানের সম্ভাব্য দোষত্রুটি ও তার প্রতিকারঃ-

১. সিলিং ফ্যান সুইচ অন করা স্বত্বেও ঘোরে নাঃ-

    কারণঃ-                
  •  সাপ্লাই ভোল্টেজ নাই। 
  •  রেগুলেটর কন্ট্রাক্ট পয়েন্ট সংযোগ হয় না। 
  • রেগুলেটর কয়েল ওপেন হয়েছে। 
  •  নিউট্রাল পয়েন্ট লুজ/খুলে গিয়েছে।
  •  সুইচ থেকে ফ্যান পর্যন্ত কোথাও সার্কিটের ওয়্যারিং ওপেন হয়েছে।
  •  ফ্যানের অভ্যন্তরিন কয়েল ত্রুটিযুক্ত।
    প্রতিকারঃ-
  • সাপ্লাই ভোল্টেজ চেক করতে হবে।
  •  রেগুলেটরের কন্টাক্ট পয়েন্টের সংযোগ ঠিক করতে হবে।
  • রেগুলেটর বদলাতে হবে।
  •  নিউট্রাল পয়েন্ট সংযোগ ঠিক করতে হবে।
  •  ওয়্যারিং এ্যাভোমিটার/মাল্টিমিটার দ্বারা চেক করতে হবে।
  • ফ্যানের অভ্যন্তরিন ওয়্যারিং চেক করে মেরামত করতে হবে।

২. সুইচ অন করলে ফ্যান খুব আস্তে ঘোরেঃ-

    কারণঃ-
  • ক্যাপাসিটর দূর্বল।
  • বিয়ারিং বেশ জ্যাম।
    প্রতিকারঃ-
  •  নতুন ক্যাপাসিটর লাগাতে হবে।
  •  বিয়ারিং এ তেল দিতে হবে অথবা কাজ না হলে পরিবর্তন করতে হবে।

৩. সুইচ অন করলে সামান্য গোঁ গোঁ শব্দ করে কাঁপতে থাকে কিন্তু ঘোরে নাঃ-

    কারণঃ-
  • ক্যাপাসিটর সংযোগ খুলে গেছে।
  • বিয়ারিং খুব জ্যাম অথবা ভাংগা।
  •  বিয়ারিং বেশি লুজ হওয়ার কারণে রোটর চুম্বকীয় আকর্ষণে স্টেটরের সাথে আটকে যায়।
    প্রতিকারঃ-
  • ক্যাপাসিটর ভালোভাবে সংযোগ করতে হবে।
  •  বিয়ারিং এ তেল দিতে হবে অথবা কাজ না হলে পরিবর্তন করতে হবে।
  • লুজ হয়ে যাওয়া বিয়ারিং অবশ্যই পরিবর্তন করে নতুন লাগাতে হবে।

৪. ফ্যান উল্টা ঘোরেঃ-

    কারণঃ-
  • ক্যাপাসিটর সংযোগ উল্টা হয়েছে।
  • সংযোগ ঠিক থাকলে ক্যাপাসিটর ত্রুটিযুক্ত হয়েছে।
    প্রতিকারঃ- 
  •  ক্যাপাসিটর সংযোগ ঠিক করে লাগাতে হবে।
  •  ত্রুটিযুক্ত ক্যাপাসিটর বদলে নতুন লাগাতে হবে।

৫. সুইচ অন করলে ফ্যান ঘোরে কিন্তু জোরে ঘোরে নাঃ-

    কারণঃ-
  •  ক্যাপাসিটর কিছুটা দূর্বল হয়েছে।
  • ফ্যানের ওয়্যান্ডিং ত্রুটিযুক্ত যেমন, কিছু কয়েল শর্ট।
  • সঠিক মানের ক্যাপাসিটর লাগানো নেই।
  • পাখা/ব্লেডের ভাঁজ খুব বেশি।
    প্রতিকারঃ- 
  •  ক্যাপাসিটর বদলাতে হবে।
  •  ফ্যানের ওয়্যান্ডিং চেক করে ত্রুটিযুক্ত কয়েল নতুনভাবে ওয়্যান্ডিং করতে হবে। প্রয়োজনে সম্পূর্ণ কয়েল নতুনভাবে ওয়্যান্ডিং করতে হবে।
  • সঠিক মানের ক্যাপাসিটর লাগাতে হবে।
  • ব্লেডের ভাঁজ ঠিক করতে হবে।

৬. ফ্যান বেশি জোরে ঘোরে কিন্তু বাতাস বেশি নিচে আসে নাঃ-

    কারণঃ-
  •  ফ্যানের ব্লেডের ভাঁজ প্রায় সমান হয়ে গিয়েছে।
  • ফ্যানের ডাউন রড খুব ছোট যার জন্য সিলিং এর কাছথেকে বাতাশ টেনে আনতে পারছে না। অথবা যে যায়গায় ফ্যান ঘুরছে সেখানে বাতাস প্রবেশের পর্যাপ্ত জায়গা নেই।
    প্রতিকারঃ- 
  • ফ্যানের ব্লেডের ভাঁজ ঠিক করে দিতে হবে। 
  • ফ্যানের ডাউন রড সঠিক করতে হবে এবং কম স্পেসে ফ্যান ঘুরলে সেখানে সিলিং ফ্যান না লাগিয়ে টেবিল ফ্যান বা স্টান্ড ফ্যান ব্যবহার করা  উত্তম অথবা ছোট সাইজের সিলিং ফ্যান ব্যবহার করা যেতে পারে। 

৭. ফ্যান চলার সময় শব্দ করে চলেঃ-

    কারণঃ-
  • বিয়ারিং ভাঙ্গা অথবা লুজ।
  • ফ্যানের রোটর ঘোরার সময় স্টেটরের সঙ্গে ঘষা লাগে।
  • ব্লেডের স্ক্রু ঢিলা।
  • ফ্যানের স্টেটর শ্যাফট রোটরের যে অংশ দিয়ে বেরিয়ে এসেছে সেখানে ক্ষয় হয়ে গেছে। 
  • শেডেড পোল টাইপ সিলিং ফ্যান হলে শেডিং কয়েলের জোড়ার রাং ঝালাই খুলে গিয়েছে বা শেডিং কয়েল খুয়ে গিয়েছে।
    প্রতিকারঃ- 
  • বিয়ারিং পরিবর্তন করতে হবে।
  • ফ্যানের রোটর এবং স্টেটর সঠিকভাবে বসাতে হবে যেন ঘষা না লাগে।
  • ব্লেডের স্ক্রু পর্যাপ্ত পরিমাণ টাইট দিতে হবে।
  • শ্যাফটে ধাতব পদার্থের জয়েন্ট ধরিয়ে লেদে টানিং করে ঠিক করতে হবে। অনুরূপভাবে রোটরের ক্ষয়প্রাপ্ত অংশও মেরামত করতে হবে।
  • রাং ঝালাই দিতে হবে এবং শেডিং কয়েল নতুন করে দিতে হবে।

৮. ফ্যান ঘোরে কিন্তু ফ্যানের বডিতে কারেন্ট আসেঃ-

    কারণঃ-
  • ফ্যানের কোন কয়েল কিংবা কোন তার ফ্যানের বডিতে লেগে গিয়েছে যার কারণে বডিতে কারেন্ট আসে।
  • কয়েলের ইনসুলেশন নষ্ট হয়ে গেছে।
    প্রতিকারঃ- 
  •  এ্যাভোমিটার/মাল্টিমিটার/সিরিজ ল্যাম্প দ্বারা চেক করে ত্রুটিযুক্ত অংশ চিহ্নিত ও মেরামত করতে হবে।
  • নতুন করে বার্নিশ দিতে হবে। কাজ না হলে কয়েল পারিবর্তন করতে হবে।

৯. ফ্যানের সুইচ অফ স্বত্বেও ফ্যান ধীরে ধীরে ঘোরেঃ-

    কারণঃ-
  •  সুইচে গিয়েছে নিউট্রাল তার এবং এই তারের কোথাও ইনসুলেশন নষ্ট হয়েছে, যার জন্য লিকেজ কারেন্ট আর্থে যেয়ে বর্তনী সম্পূর্ণ হয়ে ফ্যান ধীরে ধীরে ঘুরছে।
  •  সুইচ থেকে ফ্যানের সাপ্লাইয়ে কোথাও টুইন কোর থাকলে এই টুইন কোরের কোথাও হালকা ভাবে ফেজ নিউট্রাল শর্ট হয়েছে।
    
    প্রতিকারঃ- 
  • ওয়্যারিং সার্কিট ঠিক করতে হবে বা তার বদলিয়ে ভাল তার দিতে হবে।
  • সমস্ত তার বদলিয়ে দিতে হবে।

১০. নতুন রি-ওয়্যান্ডিং যু্ক্ত ফ্যান তেমন জোরে ঘোরে নাঃ -

    কারণঃ-
  •  রি-ওয়্যান্ডিং সঠিক সাইজের তার দিয়ে করা নাই অথবা প্যাঁচ সংখ্যা ঠিক নাই। অন্য সবকিছু ঠিক আছে।
    প্রতিকারঃ- 
  •  অন্য সবকিছু ঠিক থাকলে রি-ওয়্যান্ডিং সঠিক সাইজের তার দ্বারা সঠিক প্যাঁচ সংখ্যায় করতে হবে। 

১১. অর্জিনাল ওয়্যান্ডিংযু্ক্ত ফ্যান হঠাৎ করে তেমন জোরে ঘুরছে না। ক্যাপাসিটর, বিয়ারিং ভালো আছে, ওয়্যান্ডিং শর্ট নাইঃ-

    কারণঃ-
  •  ফ্যানের ওয়্যান্ডিং এ পানি বা বাষ্প জমে ইনসুলেশন কিছুটা দূর্বল হয়েছে। এছাড়া স্টেটর ও রোটরের গায়ে মরিচা পড়ে গিয়েছে যার জন্য ম্যাগনেটিক ফ্লাস্ক প্রবাহে কিছুটা বাধার সৃষ্টি হচ্ছে।     
    প্রতিকারঃ- 
  • ইনসুলেশন হিট বার্ণিশ দিতে হবে এবং উপযুক্ত সিরিজ কাগজ দিয়ে খুব হালকা ভাবে ঘষে ষ্টেটর ও রোটরের উপরে জমে থাকা মরিচা বা আবরণ দূর করতে হবে। 
বিঃদ্রঃ দোষত্রুটি সঠিকভাবে নিরীক্ষণ করে তার প্রতিকার করতে পারলে আবার পূর্বের মতো দক্ষতা পাওয়া সম্ভব। দক্ষ কারিগর হতে হলে এ ব্যাপারে যথেষ্ট জ্ঞান অর্জন করতে হবে এবং কঠোর পরিশ্রম করতে হবে। 

No comments

Theme images by nickfree. Powered by Blogger.